1. info@samagrabangla.com : Sinbad :

বরের চেয়ে কনের বয়স বেশি হলে যে সমস্যা হতে পারে

  • Update Time : Friday, May 29, 2020
  • 64 Time View

যদিও বর্তমানে এমনটা ঘটছে; বরের চেয়ে যদি কনের বয়স বেশি হয় তাহলে সাধারণত কী ধরনের সমস্যা হতে পারে?

আমার মতে তেমন কোন সমস্যা হওয়ার কথা না। এর রকম অনেক বিয়ে আমি জীবনে দেখেছি যেখানে বরের চেয়ে কনের বয়স বেশি।

অনেক সময় বয়সের পার্থক্যের কারনে দুইজনের জীবনের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি দুইরকম হয়ে যায়। যাকে আমরা বলি জেনারেশন গ্যাপ। এই বিষয়টি স্বামী যদি স্ত্রীর চেয়ে বয়সে অনেক বড় হয় তাহলেও হতে পারে। অনেক সময় সমবয়সীদের মধ্যেও দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্যের কারনে এই জটিল সমস্যা চলে আসতে পারে। তবে আমাদের সমাজে স্বামীর বেশি বয়স হবার কারনে দাম্পত্য সমস্যা যে হতে পারে সেই বিষয়টি নিয়ে কাউকে তেমন চিন্তিত হতে দেখা না গেলেও স্ত্রীর বয়স দুই এক বছর বেশি হলেই সবাই সেই দম্পতির বিষয়ে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। দেখা যায়, দাম্পত্যের সাধারণ সমস্যাগুলোর ক্ষেত্রেও স্ত্রীর সেই দুই/এক বছরের বড় হবার বিষয়টি টেনে এনে কমবয়েসী স্বামীটি সবার চোখে নিতান্তই শিশুর স্নেহ পেতে শুরু করেন। যেটি এই দম্পতির সম্পর্কের ভবিষ্যতকে ভয়াবহভাবে প্রভাবিত করে।

বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই স্বামীর বয়স স্ত্রীর চেয়ে একটু বেশি হয়ে থাকে। তবে অনেকের ক্ষেত্রে এই নিয়মের ব্যতিক্রমও ঘটে যায়। আর তখনই হয়তো নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় তাদের। সেটা হতে পারে শারীরিক ও মানসিক দুটোই। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক, এমন বিয়ের ফলে কী কী সমস্যায় পড়তে হয় তাদের-

আমাদের দেশে বিখ্যাত অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা পরিচালক বদরুল আনাম সৌদকে বিয়ে করে গোটা দেশে হাহাকার ফেলে দিয়েছিলেন! কারণ পাত্র সুবর্ণার চেয়ে বয়সে ১৫ বছরের ছোট!

এক. মানসিক চাপ স্বামীর চেয়ে স্ত্রীর বয়স বেশি হলে যেসব পারিবারিক ও সামাজিক সমস্যা তৈরি হয় তা মনের উপরে চাপ সৃষ্টি করে। দেখা যায়, নারীর মনে তা বেশি প্রভাব ফেলে। এর জেরে সম্পর্ক ভেঙে যাওয়াও অস্বাভাবিক নয় কিছু নয়।

ব্রিটিশ রাজপুত্র হ্যারি বিয়ে করলেন বিখ্যাত অভিনেত্রী মেগান মার্কেলকে। মেগান হ্যারির চেয়ে বয়সে তিন বছরের বড়।

ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রনের ৩৯ বছর বয়েস এবং তার ৬৪ বছর বয়েসী স্ত্রী ব্রিজিতের হাত শক্ত করে ধরে রেখেছেন।

দুই. যৌনজীবনে সমস্যা স্বামীর চেয়ে স্ত্রীর বয়স খুব বেশি হলে একটা সময়ে যৌনজীবনে সমস্যা তৈরি হয়ে থাকে। কারণ, নারী ও পুরুষের শারীরিক ক্ষমতা ও চাহিদা এক রকম হয় না। নারীর বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শারীরিক চাহিদা দিন দিন কমে আর পুরুষের শারীরিক চাহিদা অনেক বয়স পর্যন্ত বজায় থাকে। এতে দেখা যায়, তাদের নান সমস্যায় পড়তে হয়।

তিন. লোকনিন্দা স্ত্রী যখন বয়সে বড় হন, তখন প্রথমেই যে বিষয়টির মুখোমুখি হতে হয় সেটি হল লোকজনের নিন্দা। স্বামী-স্ত্রীর দিকে বাঁকা চোখে তাকান অনেকেই। কথা শুনতে হয় বন্ধুদের থেকেও। স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য নিয়ে অনেকে আড়ালে, এমনকি সামনাসামনিও ঠাট্টা করে থাকে।

চার. পারিবারিক অসহযোগিতা স্ত্রীর বেশি বয়স নিয়ে সবচেয়ে বেশি আপত্তি আসে পরিবার থেকেই। খুব কম পরিবারই রয়েছে যেখানে এমন বিয়ে সহজেই গ্রহণ করা হয়।

পাঁচ. বয়সের ছাপ স্ত্রী যখন স্বামীর চেয়ে বয়সে বড় হয়ে থাকেন, তখন স্বাভাবিকভাবেই স্ত্রীর চেহারায় বয়সের ছাপ আগে পড়বে। অনেক পুরুষই তখন স্ত্রীকে অপরের সঙ্গে পরিচয় করাতে সঙ্কোচবোধ করেন। আবার অনেক স্ত্রী স্বামীর সঙ্গে বের হতে চান না। পরস্পরের মধ্য একটা দূরত্ব থেকেই যায়।

ছয়. গর্ভধারণে সমস্যা সাধারণত ৩৫ বছরের পরেই গর্ভধারণ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যায়। স্বামীর বয়স খুব কম হলে সে সন্তানের জন্য অপেক্ষা করতেই পারে। কিন্তু বয়স্কা স্ত্রীর পক্ষে সন্তানের জন্য বেশি দিন অপেক্ষা করা নিরাপদ নয়।

সাত. বোঝাপড়ার সমস্যা মনস্তাত্বিকরা বলেন, সমবয়সি দু’জন ছেলে এবং মেয়ের মধ্যে মেয়ের মানসিক বয়স ছেলের তুলনায় দু’বছরের বেশি হয়। স্বামীর তুলনায় স্ত্রীর বয়স বেশি হলে মানসিক বয়সের পার্থক্য আরও বেশি হবে। এই মানসিক বয়সের পার্থক্যের কারণে বোঝাপড়ার অভাব হওয়াটা স্বাভাবিক। অনেক সময়ে স্ত্রী বেশি অভিজ্ঞ হওয়ায় স্বামীর মনে হতে পারে সে তার উপর কর্তৃত্ব করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category