1. mdmasuk350@gmail.com : Abdul Ahad Masuk : Abdul Ahad Masuk
  2. jobedaenterprise@yahoo.com : ABU NASER : ABU NASER
  3. suyeb.mlc@gmail.com : Hafijur Rahman Suyeb : Hafijur Rahman Suyeb
  4. lilysultana26@gmail.com : Lily Sultana : Lily Sultana
  5. mahfujpanjeree@gmail.com : MahfuzurRahman :
  6. admin@samagrabangla.com : main-admin :
  7. mamun@samagrabangla.com : Mahmudur Rahman : Mahmudur Rahman
  8. amshipon71@gmail.com : MUHIN SHIPON : MUHIN SHIPON
  9. yousuf.today@gmail.com : Muhammad Yousuf : Muhammad Yousuf

সিজারে অসুবিধা সমুহ যা

  • Update Time : Thursday, December 10, 2020
একটা সিজার মানে বাচ্চা জন্মের পর থেকে একটা মায়ের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত প্রতিবন্ধী হয়ে বেঁচে থাকা। আরে যাদের নরমালে বেবী হয় হয়, তাদের নাড়ি ছেড়া ধন হয়,,,, আর যাদের সিজার হয় তাদের নাড়ি ছেড়া ধন হয়না কিন্তু নাড়ি কাটা ধন হয়।
সিজারে কিসের কষ্ট শুধু পেট কাটে!!! ৭টা পর্দা কেটে বেবীটাকে দুনিয়াতে আনতে হয় ।
হয়তো বা সিজার করার আগে অ্যানেসথেসিয়ার জন্য বোঝা যায় না পেট কাটাটা। আধা ঘন্টার মধ্যে ৩টে স্যালাইন শেষ হয় ।
কিন্তু মোটা সিরিঞ্জের মেরুদণ্ডে দেওয়া এই ইনজেকশন টা সারা জীবন কষ্ট দেয়।
কখনো অবস হয়ে থাকে, আবার কখনো বসা থেকে উঠা যায় না,,,,,কাপড় কাচা যায় না, ভারী কিছু ওঠানো যায় না। তবুও আমারা সব কিছু করি, এবং করার চেষ্টা করি। করতে ও হবে কারণ আমরা যে মেয়ে। বিশ্বাস কর যখন অবস এর মেয়াদ টা চলে যায়, তখন একটা গলা কাটা মুরগির মতো ছটফট করতে হয়।
আপনজন ছেড়ে পোস্ট অপারেটিভ রুমে থাকতে হয় ২৪ ঘন্টায় ২৪ স্যালাইন চলে, আর কাটা জায়গায় কি যে কষ্ট হয়, বলার মতো না,,,, তার সাথে খিছুনি, শরীরের কাঁপুনি। হাতে কেনোলাই স্যালাইন চলছে,,,,, প্রসাবের রাস্তায় ক্যাথেতার নিথর শরীর থরথর কাঁপছে , মাথাটাও ভারী হয়ে আছে, তবুও শত কষ্ট উপেক্ষা করে বাচচা কে বেস্ট ফিডিং করায়।
তার পর ও বাচচার প্রতি টান নেই বলা যায় কি।????
মৃত্যু কে হার মানিয়ে এসে যদি শুনতে হয় পেট কেটে বাচচা হলে কিসের কষ্ট ,,,,,,
যদি শুনতে হয় সিজারিয়ান মায়েদের বাচ্চাদের প্রতি টান নেই, তাহলে কেমন লাগে কথাটা শুনতে।
খুব কষ্ট লাগে তখন !
আর তাই এতো কিছু সহ্য করে ও জীবনের শেষ সময়ে অধিকাংশ মায়ের জায়গা কেন হয় বৃদ্ধাশ্রমে !!!!
কেউ কি এর উত্তর দিতে পারেন ????
বিদ্র: এ প্রতিবেদনটি একান্ত লেখকের ব্যক্তিগত মতামত:
লেখক: তানিয়া আক্তার

তথ্যটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

More News Of This Category