1. mahfujpanjeree@gmail.com : Mahfuzur-Rahman :
  2. admin@samagrabangla.com : main-admin :
  3. mahmudursir@gmail.com : samagra :

বাংলাদেশের আইন প্রণয়ন পদ্ধতি

  • Update Time : শুক্রবার, জানুয়ারি ২৯, ২০২১

আইন প্রণয়ন :

আইন প্রণয়ন সম্পর্কে বলা হয়েছে সংবিধানের ৮০ নং অনুচ্ছেদে।
♦ আইন প্রণয়নের জন্য সংসদে উত্থাপিত আইনের খসড়াকে- বিল বলে।
♦বিল দুই প্রকার- সরকারি বিল ও বেসরকারি বিল।
♦ সরকারি বিল উত্থাপন করে- মন্ত্রীগণ; বেসরকারি বিল উত্থাপিত করে- জাতীয় সংসদ সদস্যগণ।
♦ উত্থাপিত বিলের পাঠ শেষে সংসদ কর্তৃক গৃহীত হলে তা প্রেরণ করা হয়- স্থায়ী কমিটির নিকট।
♦ বিলের তৃতীয় পাঠের সময় সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটে সংসদে গৃহীত হলে প্রেরণ করা হয়- রাষ্ট্রপতির সম্মতির জন্য।
♦ রাষ্ট্রপতি ১৫ দিনের মধ্যে সম্মতি না দিলে তিনি বিলটি পুনর্বিবেচনা ও সংশোধনের জন্য সংসদে প্রেরণ করবেন।
♦ সংসদ সংশোধিত বিলটি পুনরায় রাষ্ট্রপতি নিকট পাঠালে তিনি ৭ দিনের মধ্যে সম্মতি দিবেন নতুবা ৭ দিন পর বিলটিতে সম্মতি দান করেছেন বলে গণ্য হবে।
♦ অধ্যাদেশ প্রণয়ন ও জারি করেন- রাষ্ট্রপতি।
♦ সংসদে কোনো বিলই পাস হয় না- রাষ্ট্রপতির অনুমোদন ব্যতিত।
♦ আইন-শৃঙ্খলা বিঘœকারী অপরাধ (দ্রæত বিচার) আইন জাতীয় সংসদে পাস হয়- ৯ এপ্রিল, ২০০২; জন্ম মৃত্যু নিবন্ধন আইন কার্যকর হয়- ২০০৬ সালে।
♦ ‘পলিথিন ব্যবহার নিষিদ্ধ’ আইন প্রণীত হয়- ২০০২ সালে।
♦ বাংলাদেশের বর্তমান আইনে এসিড নিক্ষেপকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান- মৃত্যুদণ্ড।
♦ বাংলাদেশ তথ্য অধিকার আইন প্রণীত হয়- ২০০৯ সালে, এর লক্ষ্য সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা।
♦ বাংলাদেশ সরকারের প্রধান আইন কর্মকর্তা- এটর্নি জেনারেল। এটর্নি জেনারেল নিয়োগ দেন- রাষ্ট্রপতি, এটর্নি জেনারেলের মেয়াদ- রাষ্ট্রপতির সন্তোষ অনুযায়ী। বর্তমান এটর্নি জেনারেল- জনাব আবু মোহাম্মদ আমিন উদ্দিন।

তথ্যটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

More News Of This Category